GIGABYTE GEFORCE GTX 1650 SUPER WINDFORCE OC 4G GRAPHICS CARD

GIGABYTE GEFORCE GTX 1650 SUPER WINDFORCE OC 4G GRAPHICS CARD

আপনি যদি আমার পোস্ট এর নিয়মিত পাঠক হয়ে থাকেন তাহলে হয়ত অবশ্যই জানেন যে GeForce 1660 SUPER কে নিয়ে মাত্র কিছুদিন আগেই কথা বলেছিলাম। আর এখন 1650 SUPER ও এসে পরেছে। তো আপনি যদি এমন একজন ব্যাক্তি হয়ে থাকেন যে পেছনের কিছু দিনের মধ্যে 1650 কিনেছিলেন তাহলে আপনার জন্য অনেক অনেক সিপ্যাথি আমার পক্ষ থেকে! তো 1650 super হচ্ছে তাদের এই লাইন আপ এর লেটেস্ট আপডেট এবং এটা বেশ ভালোই পারফমেন্স দিচ্ছে 1080p গেমিং এর জন্য এবং যতজন ব্যাক্তি পেছনের কিছু দিনের মধ্যে 1650 কিনেছিলেন তাদের সাথে তো অবশ্যই খুব বড় ধোকা হয়েছে! তো আপনি যদি একজন 1650 ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে আমি আপনাকে রেকমেন্ড করব এই পোস্ট টা আর না পড়ার জন্য আমি চাই না আপনি আর কষ্ট পান!! বুঝতেই পারছেন অবশ্যই! এবং শেষ পর্যন্ত তারাই পোড়তে থাকুন যারা জানতে ইচ্ছুক 1650 super আসলে কেমন পারফমেন্স দেয়, গেমস এ কেমন চলে এবং এই কার্ড টা ক্রয় করা ঠিক হবে কিনা! এবার তারা অপ্টিকাল ড্রাইভ দেয়নি ব্যাপার টা ভাল কেননা অপটিক্যাল ড্রাইভ সেকেলে ব্যাবহার করা হত এখন পেন ড্রাইভ এর যুগ বলা চলে এবং বক্স টি খুললে শুধু মাত্র একটি কিউট জিপিইউ দেখতে পাবেন। ফ্যান এ উইন্ডফোরস ডিজাইন দেওয়া হয়েছে অর্থাৎ অল্টারনেট ফ্যান স্পিন হয় যেন কুলিং খুব ভাল হয়! 90mm এর ফ্যান দেওয়া হয়েছে, 1755 MHz এর ক্লক স্পিড (1725 in reference card) এছাড়া এর memory interface 4gb GDDR6 128 bit. মেমরি স্পিড 12 gbps মেমোরি ব্যান্ডউইথ ১৯২ পার সেকেন্ড! 4000 মেগাহার্টজ মেমোরি ক্লক। এই কার্ডে ১২৮০ কুডা কোরস রয়েছে এবং ১০০ ওয়াট এর টোটাল পাওয়ার ড্র। এখানে 1650 এর পাওয়ার 75 ওয়াট এ কম ছিল এবং এর পাওয়ার কানেক্টর এ প্রয়োজন হত! কিন্তু এখানে ৬ পিন পাওয়ার কানেক্টর লাগাতে হয় গেমইং এর জন্য এবং এই কার্ডে আপনাকে মিনিমাম ৩৫০ ওয়াট এর পিএসইউ লাগাতে হবে ভাল পারফমেন্স পাওয়ার জন্য এবং আপনি যদি 1650 super এর সাথে পিসি বিল্ড করতে চান তাহলে অ্যাট লিস্ট আপনাকে i3 9100f বা i5 প্রসেসর এ যাওয়া উচিত এবং AMD এর প্রসেসরস দিয়ে আমি নিজে ট্রাইও করেছিলাম এবং সেখানেতো আরও ব্যাটার পারফমেন্স পেলাম। বেঞ্চমার্ক এর কথা বললে বলব- আমি এখানে AMD এর রাইজেন 5360x প্রসেসর ৩২ জিবি র‍্যাম এর সাথে। কার্ড একদমই ওভার হিট হয়নি রেস্পেক্টেবল টেম্প্রেচারে চলছিল এমনকি এক্সটেন্ডেড গেমিং পিরিয়ড এও সাউন্ড মোটেও ডিস্টারভিং ছিল না এবং অনেক গুল গেইম ও টেস্ট করলাম এইসব কিছু থেকে এবং বাকি আরও গেইম খেলার পর আমার কাছে একটি ফাইনাল কনক্লুশন এসেছে এবং বেঞ্চ মার্ক থেকেও আমি একটি কঙ্কলুশন এ এসেছি যে 1650 super ডেফেনেটলি 1650 থেকে বেটার কার্ড! AMD এর ক্যাম্পে গেলে তাহলে দেখা যাবে 1650 super এবং rx580 অলমোস্ট সেইম এবং কিছু কিছু দিক দিয়ে 1650 super বেশি fps দেয় আর NVIDIA’র নিজস্ব জিপিইউ এর সাথে কম্পেয়ার করি তাহলে বলব 1650 সুপার 1660 থেকে কিছুটা পেছনে! এবং চয়েজ করার আগে মনে রাখুন rx550 ও আসছে কিছুদিন এর মধ্যেই এবং খুব সম্ববত এটা ১৬৫০ সুপার থেকে বেটার হতে পারে! সম্ভাবনা আছে। কিন্তু দেখি প্রাইসিং কেমন হয় rx550 এর রিয়াল ওয়ার্ল্ড পারফমেন্স কেমন হয়! যদি আপনার কাছে 1650 super থাকে তাহলে আপনি ১৫-২০ fps বেশি পাবনে অলমোস্ট সকল গেইম এ এবং শুধু মাত্র ১০ ডলার এর প্রাইস ডিফ্রেন্সে এমন টা হচ্ছে। এর মানে 1650 ইউজার দের মনের মধ্যে যে চাকু টা ঢুকিয়েছে তারা তা বিশাল! আমি বাক্রুদ্ধ!! এই কার্ড ফিউচার প্রুফ না কেননা ফিউচারে আরও ভাল ভাও গেইম এর আগমন হবে। এবং rdr2 গেইম এর জন্য 1080p হাইতে তেমন ভাল চলবে না কেননা অনেক হেবি গেইম ওটা! তবে 1080p মিডিয়াম এ দারুণ চলে! এভাবেই বাকিসব গেইম ও বেঞ্চ মার্কস গুলো মাথায় রেখে ফাইনাল কঙ্কলুশন এটা আসে যে- বাংলাদেশে এর মূল্য [price] টাকা হবে! আমার কাছে মনে হয় সবাই মিলে অনেক ওভার প্রাইস করে ফেলেছে আরও সস্তা করতে পারত তারা এবং সেই প্রাইসেই অনেক ভাল কার্ড হত এটা! এখনকার জন্য এটা আমার কাছে বেশ ঠিক ঠাক কার্ড মনে হচ্ছে এবং নরমালি আপনি যদি একজন গেমার হয়ে থাকেন যে শুধু মাত্র 1080p হাই গেমিং করতে চান তাহলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *